Ganga Theke Niagra | Diptendu Chakraborty

15%

275.00

প্রতিবেশী বড়লোকের মেধাবি সুন্দরী কন্যার প্রেমে হাবুডুবু বেলঘরিয়ার ছেলে দীপ্তেন্দু প্রেমে প্রত্যাখ্যাত হন। তীব্র অপমানের জ্বালায় রাইটার্সের কেরানির নিশ্চিত সরকারি চাকরি এবং ঘরের অমোঘ পিছুটান ছেড়ে স্রেফ একখানা সাইকেল আর সামান্য কিছু টাকা পকেটে নিয়ে লন্ডনের উদ্দেশ্যে পাড়ি জমালেন। প্রেমে দাগা খেয়ে লোকজন নানান কিছু করে থাকে। তাই বলে সরকারি চাকরির নিশ্চিন্ত আরাম ছেড়ে বিবাগী হয়ে সাইকেলে চড়ে বিলেত? তাও আবার বাঙালি! আজকের ঘটনা নয়। সেই উনসত্তর সালের কথা। জ্যোতিবাবুর চিঠি সঙ্গে নিয়ে বেরিয়েছিলেন। একে একে ইন্দিরা গান্ধী কিংবা স্যাম মানেকশ প্রত্যেকের থেকে হাতে গরম উৎসাহ পেয়েছিলেন। ঘটনাবহুল জীবন। পাথেয় যোগাড়ের জন্য কত অজস্র যে কাজ করেছেন, হিসেব রাখা মুশকিল। কখনও রেস্তোরাঁয় বাসন মাজা, কখনও রাঁধুনির সহকারি কখনও আরও কত। আক্ষরিক অর্থেই পায়ে চাকা লাগানো দীপ্তেন্দুকে কেউ বাঁধতে পারেননি। চলার রাস্তায় একের পর এক গ্রাম, শহর, দেশ পার করে গিয়েছেন। কখনও ভিনদেশি ডানাকাটা পরী, কখনও পূর্ব ইউরোপের গ্রামীণ মাতৃস্নেহ, কখনও সাগরপারের অপরিচিত ভিনদেশীর অনাবিল বন্ধুত্ব- অজস্র সম্পর্কের অমোঘ হাতছানি বেলঘরিয়ার বাঙালিকে আটকাতে সমর্থ হয়নি। মায়ার বন্ধন থেকে মুক্ত হয়ে প্রজাপতির মত উড়ে বেড়িয়েছেন নিছক উড়ে যাওয়ার আনন্দে। সমকালীন আর পাঁচজন গড়পড়তা বাঙালিকে মানসিকতায় বহুযোজন পেছনে ফেলে কখন এগিয়ে গিয়েছেন, নিজেও বুঝতে পারেননি। এগিয়ে যাওয়া? চরৈবেতি মন্ত্র? বলা কঠিন। লেখার ছত্রে ছত্রে নিজেকে নিয়ে মজা করেছেন। আর ফাঁকে ফাঁকে বারেবারেই মনে পড়েছে বেলঘরিয়ায় ফেলে আসা তাঁর সেই প্রেমীকাকে; রাইটার্সের কেরানীর সঙ্গে যে সম্পর্ক রাখতে চায়নি। বাঁধনছাড়া বোহেমিয়ান মানুষটি নিজের দেশ, পাড়া, প্রতিবেশী, রাইটার্সের সহকর্মী- কাউকে ভোলেননি। সুযোগ পেলেই চিঠি লিখে গিয়েছেন। সাইকেলে চড়ে লন্ডন যাওয়ার অলীক কল্পনা সফল করার লক্ষ্যে ঘর ছেড়েছিলেন। থামলেন শেষে আটলান্টিক পার করে সূদূর কানাডায় গিয়ে। গঙ্গাপারের ভেতো বাঙালি থিতু হলেন নায়াগ্রার তীরে। ফর্সা মেম নয়, ঘরছাড়া মানুষটি সাত সমুদ্র তের নদী পার করে ঘর বাঁধলেন এক বঙ্গললনার সঙ্গেই।
আশ্চর্য জীবন। তেমনই অনন্য লেখা। প্রবাসীদের একাংশ নাক উঁচু। উত্তর শহরতলির মানুষটি এখনও তাদের কাছে খানিক পরিহাসের পাত্র। নিজেই বলেন। সত্তর আশি নব্বই জুড়ে দীর্ঘ সময় দেশের খবর রেখে গিয়েছেন। লেখা পড়লেই দিব্যি বোঝা যায়। ভগবানে ঘোর অবিশ্বাসী মানুষটি গদাধর চট্টোপাধ্যায়ের দর্শনে বিশ্বাসী। গঙ্গাপারের মেঠো বামুন ঠাকুরের ভরসায় স্রেফ মনের জোরে দুস্তর পারাবার পার করে গিয়েছেন অক্লেশে। না, ভূপর্যটক রামনাথ বিশ্বাস তিনি নন। নন আর এক ভূপর্যটক বিমল মুখোপাধ্যায়ও। তবু তিনিও কম যান না। শিকড়ের টানে প্রতিবছর নিয়ম করে দেশে পা রাখেন বহু বছর ধরেই। উত্তাল সেই সত্তর দশকে পাড়ার ডাকসাইটে গুন্ডাদের হুমকিও দীপ্তেন্দুকে দমাতে পারেনি। ঘটনার পর ঘটনা। কল্পনা নয়। নিজের জীবন থেকেই তুলে আনা।
টানটান ভাষায় লেখা বইটি পড়তে শুরু করলে শেষ না করে থেমে যাওয়া কঠিন।
SKU: DIPTENDU Categories: , , ,
Social Share

Additional information

Weight 0.216 g
Dimensions 24 × 18 × 1 cm